A Reliable Media

অসৌজন্যমূলক আচরণের জন্য ক্ষমা চাইলেন মুশফিক

অসৌজন্যমূলক আচরণের জন্য ক্ষমা চাইলেন মুশফিক

অনলাইন ডেস্ক: খেলার মাঠে অসৌজন্যমূলক আচরণের কারণে সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছে জাতীয় দলের উইকেটকিপার মুশফিকুর রহিমকে। দিন গড়াতেই মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষমা চাইলেন তিনি।

ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে সোমবার এলিমিনেটর ম্যাচে জয় পায় মুশফিকের দল বেক্সিমকো ঢাকা। জায়গা করে নেয় দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে। তবে বিতর্ক তৈরি হয়ে মাঠে অধিনায়ক মুশফিকের আচরণ নিয়ে।

খেলার উত্তেজনাপূর্ণ মুহূর্তে সতীর্থের গায়ে হাত তুলতে উদ্যত হয়েছেন মুশফিক! একবার নয়, দুই-দুবার নাসুম আহমেদের দিকে মারের ভঙ্গিতে তেড়ে যান তিনি।

সকাল ১০টার দিকে এক স্ট্যাটাসে মুশফিক বলেন, “আসসালামু আলাইকুম। প্রথমেই আমি গতকালের খেলার সময় ঘটে যাওয়া ঘটনার জন্য আমার ভক্ত ও দর্শকদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। খেলার পরেই আমি আমার সতীর্থ নাসুমের কাছে সেই ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছি।”

আরও বলেন, “দ্বিতীয়ত আমি পরম করুণাময় আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আমি সব সময় মনে রাখি সবকিছুর ঊর্ধ্বে আমি একজন মানুষ এবং মাঠে যেই আচরণ করেছি তা গ্রহণযোগ্য নয়। ইনশা আল্লাহ ভবিষ্যতে মাঠে এবং মাঠের বাইরে এ রকম ঘটনা ঘটবে না… জাযাকাল্লাহ খায়ের।”

সঙ্গে পোস্ট করেন নাসুমের সঙ্গে তোলা একটি ছবি। যেখানে দুজনকে হাসি মুখে দেখা যায়।

মুশফিকের পোস্টটি ইতিবাচকভাবেই নিয়েছেন ভক্ত ও অনুরাগীরা। এক ঘণ্টার মধ্যে ১ লাখ ১৮ হাজারের বেশি লাইক পায়। ৮ হাজার মন্তব্য ও শেয়ার হয় ৪ হাজারবারের মতো।

এর আগে সোমবারের ঘটনাটির ভিডিও ও ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে ক্রিকেট ভক্ত ও নেটিজেনদের মাঝে।

এদিন বরিশালকে ১৫১ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল ঢাকা। আফিফ হোসেন দারুণ ব্যাটিং করে ঢাকাকে রেখেছিলেন চাপে। সেই আফিফের ক্যাচ গ্লাভসবন্দি করেই নাসুমকে প্রায় ঘুষি মেরে বসেছিলেন মুশফিক!

বরিশালের ব্যাটিংয়ে ১৭তম ওভারের শেষ বলের ঘটনা সেটি। অফ স্টাম্পের বাইরের বলটি আফিফের ব্যাটে লেগে শর্ট ফাইন লেগে যায়। মুশফিক দৌড়ে গিয়ে ক্যাচটি গ্লাভসবন্দি করেন। সেই জায়গায় ফিল্ডার হিসেবে ছিলেন নাসুম। তিনিও ক্যাচটা নিতে ছুটে আসেন। তবে মুশফিককেই সুযোগ দিয়েছেন ক্যাচ নিতে। কিন্তু ক্যাচটি নিয়েই নাসুমকে মারের ভঙ্গি করেন। নাসুম বুঝতে পেরে অসহায়ভাবে মুখ সরিয়ে নেন।

পরক্ষণেই স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করেছেন মুশফিক। তবে এর আগে এই নাসুমকেই ১৩তম ওভারে মারতে উদ্যত হয়েছিলেন মুশফিক আরেক দফায়। অন্য সতীর্থদের ওপরও রাগ ঝাড়তে দেখা গেছে অনেকবার।

সাধারণ ক্রিকেট অনুরাগী তো বটেই, নিয়মিত ক্রিকেট কাভার করেন এমন সাংবাদিকদের মাঝেও এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়।

এ দিকে সোমবার বিবিসি বাংলার সঙ্গে কথা হয় নাসুম আহমেদের। তিনি এ নিয়ে খুব বেশি খোলাসা করে কিছু বলতে চাননি। নাসুম বলেন, “ম্যাচে কিছুই হয়নি। আমরা খেলেছি, জিতেছি। এর বাইরে যেটা হয়েছে সেটা ম্যাচের মধ্যে রাগের মাথায় হতেই পারে।”

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বা টুর্নামেন্ট কর্তৃপক্ষ থেকেও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য আসেনি।

editor

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *