A Reliable Media

গুগলের বিকল্প আছে কি?

গুগলের বিকল্প আছে কি?

অনলাইন ডেস্ক: ঘণ্টা খানেকের জন্য গতকাল বিশ্বজুড়ে ভেঙে পড়েছিল ইউটিউব, জিমেইলসহ গুগলের প্রায় সব সেবা। অফিস থেকে ব্যক্তিগত কাজ সব কিছু আচমকা থমকে যায়। এতে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে পুরো দিন যদি এমন সমস্যা দেখা দেয় তাহলে কী হবে।

সারা বিশ্বে ৪০০ কোটির কিছু বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী আছেন। এর মধ্যে ৪০০ কোটি মানুষই গুগল ব্যবহার করেন। কোনও গানের লাইন খোঁজা থেকে কারও অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানো, আমাদের গুগল ছাড়া চলে না।

বিশ্বের ৭১.১৮ শতাংশ স্মার্টফোন ইউজার ব্যবহার করেন অ্যান্ড্রয়েড ফোন। এই অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটিও গুগলেরই। বিশ্বের ১৫০ কোটি মানুষের কাছে ইমেইল পাঠানোর মাধ্যম জিমেইল। এটাও গুগলের সেবা। ভিডিও দেখতে হলে আমরা যে ইউটিউবে ছুটে যাই, তার ইউজার সংখ্যা ২০০ কোটির বেশি।

ইন্টারনেটে ঢোকার জন্য আমরা যে গুগল ক্রোম ব্যবহার করি, তার ইউজার সংখ্যাও ২৬০ কোটির উপর। মানে গুগলের ওপর নির্ভরশীল বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ।

গুগলের কোনো বিকল্প আছে কি। অবশ্যই আছে। কিন্তু আমরা কোনো না কোনোভাবে গুগলের সেবার কাছেই আটকে পড়েছি। প্রযুক্তি বিশ্বে গুগলেরই জয়জয়কার। অ্যান্ড্রয়েড ফোন কিনলেই তার সঙ্গে বিনামূল্যে একগুচ্ছ অ্যাপ পাওয়া যায়, যা গুগলের তৈরি। কোনও অজানা জায়গায় যেতে গেলে আমরা গুগল ম্যাপের দ্বারস্থ হই, ই-মেল পাঠাতে হলে জি-মেল, টাকা পাঠাতে গেলে জি-পে, কিছু খুঁজতে হতে গুগল ব্রাউজার, ইন্টারনেটে ঢুকতে গুগল ক্রোম।

সব ক্ষেত্রেই বিকল্প আছে। যেমন অ্যান্ড্রয়েডের বিকল্প আইওএস, গুগল ম্যাপের বিকল্প ওয়েজ, জিমেইলের বদলে ইয়াহু মেল, জি-পের বদলে ফোন-পে, ক্রোমের বিকল্প ফায়ারফক্স, ইউটিউবের বিকল্প হিসেবে আছে ভিমিও।

কিন্তু গুগল সব পরিষেবাকে যেভাবে এক ছাতার তলায় নিয়ে এসেছে তা অন্য কেউ পারেনি। গুগল ছাড়া যে বিকল্পগুলো রয়েছে, হয় সেগুলো বিনামূল্যে পাওয়া যায়, দাম বেশি অথবা সেগুলোর ব্যাপ্তি বা ক্ষমতা কম। তাই গুগলের বিকল্প আছে ঠিকই, কিন্তু জনপ্রিয়তা এবং প্রয়োগে তারা গুগলের চেয়ে ১০ যোজন দূরে। তাই গুগল ‘সার্ভার ডাউন আছে’ বললেই, সোমবারের মতো থমকে যেতে হয় বিশ্বকে।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

editor

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *