A Reliable Media

‘জিয়া এরশাদ খালেদা জিয়ারা বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে অনেক চেষ্টা করেছে’

‘জিয়া এরশাদ খালেদা জিয়ারা বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে অনেক চেষ্টা করেছে’

অনলাইন ডেস্ক: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি বলেছেন, ‘১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে জিয়া এরশাদ খালেদা জিয়ারা অনেকভাবে চেষ্টা করেছিল বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে কিন্তু বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে পারেনি। ইতিহাসকে পাল্টে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু ইতিহাসকে পাল্টানো যায় না। ইতিহাসকে যেমন পাল্টানো যায় না তেমনি বঙ্গবন্ধুকেও মুছে ফেলা যাবে না। কারণ, বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ মানেই বঙ্গবন্ধু।

সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) দিনাজপুর মুক্ত দিবস উপলক্ষে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী আরও বলেন, ‘১৪ ডিসেম্বর দিনাজপুর মুক্ত দিবস। কিন্তু অনেকেই ১৪ ডিসেম্বরকে মুক্ত দিবস মানেন না। যারা ১৪ ডিসেম্বর দিনাজপুর মুক্ত দিবস মানে না তারা বলুক দিনাজপুর কবে মুক্ত হয়েছিল? আমি একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকের সন্তান। আমি পারিবারিকভাবেই খুব ছোট বেলা থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত আছি। ১৪ ডিসেম্বর দিনাজপুর মুক্ত দিবস এই ইতিহাস পাল্টানো যাবে না। পাল্টানোর মতো কোন সুযোগও নেই। ইতিহাস তার সঠিক পথেই চলবে। ’

মন্ত্রী বলেন, ‘জিয়া এরশাদ খালেদা জিয়াও ইতিহাসকে পাল্টে দিতে বহু চেষ্টা করেছে কিন্তু পারে নাই।

খুনিদের নিয়ে রাজনীতি করেছে। এই দিনাজপুরেই সন্ত্রাসের রাজনীতি দেখেছি। আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীদের উপরে অস্ত্র দিয়ে হামলা করার দৃশ্যও আমরা দেখেছি। অনেক মানুষের রক্ত ঝড়েছে, অনেক মানুষকে খুন হতে হয়েছে কিন্তু বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে পারে নাই। ’

ভাস্কর্য ইস্যুর বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘ইসলামের নামে যারা আজকে ভাস্কর্য ভাঙার কথা বলছে তারা আসলে সঠিক মুসলমান নয়। একাত্তরে এরাই বলেছিল, বাংলাদেশ স্বাধীন হলে ভারত হয়ে যাবে, বাংলাদেশ হিন্দু রাষ্ট্রে পরিণত হবে! এরা মূলত রাজনৈতিকভাবে পরাজিত শক্তি। এরা কখনোই বাংলাদেশের উন্নয়ন, বাংলাদেশের ভালো দেখতে পারে না। ’

দিনাজপুর মুক্ত দিবস উদ্‌যাপন পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, মহিলা এমপি জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই, জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসলাম উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফারুকুজ্জামান চৌধুরী মাইকেল প্রমুখ।

editor

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *